লাভজনক কৃষি ব্যবসা আইডিয়া

লাভজনক কৃষি ব্যবসা আইডিয়া

আপনি আপনার লাভজনক কৃষি ব্যবসা শুরু করতে চাইলে আপনাকে আগে সম্পূর্ণ আইডিয়া সরবরাহ করতে হবে। আপনি কোনও কৃষি ব্যবসা শুরু করতে চাইলে আপনাকে আপনার পরিচিতি তথ্য সহ আইডিয়া আবেদন করতে হবে। আপনি এছাড়াও আপনার কৃষি ব্যবসার সংক্রান্ত কাগজপত্র যুক্ত করতে হবে, যেমন

ছাদ বাগান ব্যবসার আইডিয়া

আপনি ছাদ বাগান ব্যবসার আইডিয়া শুরু করতে চান? আমি আপনাকে সুপারিশ করতে চাই যে আপনি একটি ভিন্ন প্রকৃতিতে কাজ করতে চান। আপনি প্রথমে আপনার বিষয়ে অধিকার পেতে হবে। এটি আপনার বিষয়ে অধিকার পেতে হবে যেমন স্বত্ব বা লাইসেন্স আদি। তারপর আপনি আপনার দোকান খুলতে হবে।
ছাদ বাগান  বর্তমান সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় বিজনেসের আইডিয়া। আপনি যদি শহরে এ কৃষি ভিত্তিক ব্যবসাটি চালু করতে পারেন তাহলে, অনেক ফাস্ট লাভবান থেকে পারবেন। অনেকে শখের বশে ছাদ বাগান চালু করে পরবর্তীতে তা ব্যবসায় রূপান্তর করেছে।

ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে ছাদ কানন চালু করার জন্য আপনাকে আপনার আশে-পাশে থাকা কয়েকটি বিল্ডিঙের ছাদ ভাড়া নিতে হবে। আর যদি নিজের ছাদ থাকে তাহলে তো সোনায় সোহাগা।

ছাদে আপনি সবজি অথবা ফলের চাষ করতে পারেন। তাজা এবং ভেজালমুক্ত হওয়ার কারণে বিক্রি করে ভাল টাকা আয় করার জন্য পারবেন। মনে রাখবেন, ছাদ বাগানের ক্ষেত্রে সবসময় দামী ও দুর্লভ ফল বা সবজির ব্যবসা করে লাভবান হওয়া যায়।

জৈব সার উৎপাদন

জৈব সার উৎপাদন একটি দ্রুত উন্নতিতে সহায়তা করে কৃষির উৎপাদন বাড়াতে। এটি প্রকৃতির উপাদানগুলি যা উৎপাদনের জন্য প্রয়োজন হয়, একটি কর্মসূচির অন্তর্গত অন্তরিত করে। জৈব সার ভাল যন্ত্রণা এবং উদ্ভিদের জন্য নীতিমূলক উপাদান এবং সারগুলি সমৃদ্ধ রয়েছে।
নানারকম জীবদেহের অংশ বা ধ্বংসা-বেশ হতে সৃষ্টি করা হয় জৈব সার। গোবর, আর্বজনা, হাড়ের গুড়া প্রভৃতি হতে জৈব সার উৎপাদন করা হয়। বাংলাদেশে অনেক আগে থেকেই জৈব সার বাণিজ্যিকভাবে উদ্ভাবন করা হয় ও এ জৈব সার উৎপাদন করে অনেক মানুষ সফলও হয়েছেন। ২০১৬ সালে প্রথম আলোর এক প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে জৈব সার উৎপাদনের সফলতার গল্প।

মুক্তা চাষ

মুক্তা খুব মূল্যবান ও দামি ১টি রত্ন। অলংকার সহ আরও অনেক কাজে মুক্ত ব্যবহার করা হয়। বাংলাদেশের আবহাওয়া মুক্তা চাষের জন্য উপযোগী। এছাড়া, মিঠাপানি হওয়ার কারণে মুক্ত বহনকারী ঝিনুক চাষের রয়েছে অপরিসীম সম্ভাবনা।
২০০ পিস মুক্তা চাষে আপনার ৩০ হতে ৩৫ হাজার টাকা হবে। আর এটা বিক্রি করে আপনি ১ থেকে ২ লাখ টাকা আয় করার জন্য পারবেন। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউট মুক্তা চাষ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। মুক্তা চাষে আগ্রহী হয়ে থাকে তাহলে আপনি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।

মাশরুম চাষ

সুস্বাদু এ খাবারটি আজ হতে ৪ হাজার বছর প্রথমে মিসরে রাজকীয় ভাবে চাষাবাদ করা হত। কেননা, তারা এটাকে মানুষের অমরত্বের উৎস মনে করতো। যাই হোক, কালের বিবর্তনে এর চাহিদা কেবল ঔষধের জন্য নয় বরং নিত্য খাদ্য এবং রেস্টুরেন্টের অনেক খাদ্য তৈরিতে ব্যবহার করা হয়।
সুতরাং, এই মাশরুম চাষ থেকে পারে লাভজনক ব্যবসা। বর্তমানে অনেক সুপার-শপ ও চাইনিজ রেস্টুরেন্ট বিদেশী মাশরুম দিয়ে খাদ্য তৈরি করে। সম্প্রতি আপনি যদি রেস্টুরেন্ট মালিকদের সঙ্গে কথা বলে, সেই মাশরুমগুলো চাষ করেন। তাহলে, আপনার একটা নির্দিষ্ট ক্রেতা তৈরি হয়ে গেল। ফলে লস হবার সম্ভাবনা থাকলো না। আর সব চেয়ে জ্যেষ্ঠ কথা, মাশরুম মাত্র ১০ থেকে ১৫ দিনের মধ্যে বিক্রির উপযোগী হয়ে যায়।

ক্যাপ-সিকাম চাষ

ক্যাপ-সিকাম ছাড়া রেস্টুরেন্টের অন্ন তৈরির কথা অনুমান করা যায় না। সুতরাং, আপনি যদি ক্যাপ-সিকাম চাষ করেন। তাহলে, বিক্রি করার জ্যেষ্ঠ একটা খাত থেকে গেলো। এছাড়া, সুপার-শপগুলোতেও আপনি ক্যাপ-সিকাম সরবার করার জন্য পারবেন। আর, আম-জনতা তো আছেই।
আপনি যদি ২ একর জায়গায় ক্যাপ-সিকাম চাষ করার জন্য চান তাহলে, হবে আনুমানিক ৩ লাখ টাকা। আর এ ৩ লাখ ধনের ক্যাপ-সিকাম থেকে আয় করার জন্য পারবেন প্রায় ৫ লাখ টাকা।

নার্সারি

যতদিন চাষাবাদ থাকবে তত দিন নার্সারির চাহিদা থাকবে। বর্তমানে টাউন এলাকায় অসংখ্য মানব নার্সারি থেকে তরু কিনে থাকে। শহরে একটা নার্সারি দিতে পারলে কি পরিমাণ লাভ হবে, তা আপনি প্রতিবছর যে বৃক্ষ-মেলা হয়ে সেখানে গেলেই বুঝতে পারবেন।

তবে, আপনি কোন ধরণের গাছের নার্সারি করছেন সেটি প্রচণ্ড গুরুত্বপূর্ণ। অনেক ফল, পুষ্প বা আদার্স মূল্যবান গাছ রয়েছে যেগুলোর নার্সারি করে লাভবান হওয়া যায়। এছাড়া, অধুনা ইন্টারনেটে বিক্রি করার চান্স তো আছেই।

লেখক পরিচিতি

Iqbal Hossain Shimul
Iqbal Hossain Shimul
আমি ইকবাল হোসেন শিমুল একজন ফ্রিল্যান্স ব্লগার আর্টিকেল রাইটার। আর্টিকেল রাইটিং এবং এস ই ও এর উপর কাজ করছি প্রায় ১০ বছর যাবত।
error: কপি করা ঠিক না !